দৈনন্দিন জীবনে তুলসীর প্রয়োগ

তুলসী গাছ আমাদের সবার কাছে কম বেশি পরিচিত।তুলসী গাছের বৈজ্ঞানিক নাম Ocimum Tenuiflorum.হিন্দু ধর্মল্বমীদের কাছে তুলসী গাছ পবিত্রার প্রতীক।বিগত 20 বছর ধরে প্রচলিত হয়ে আসছে হিন্দুদের বাড়ির সামনে তুলসী বেদী বা তুলসী মন্দির দেখা যেত। সেখানে সকালে ফুল জল আর সন্ধ্যাবেলা বাড়ীর মা,বোন,দিদিরা ধূপ প্রদীপ জ্বালাত।কিন্তু আজকাল ব্যস্ত দুনিয়ার এসব প্রায় উঠেই গেছে।

 

তুলসী গাছের পাতা

      তুলসী গাছের পাতা,শিকড় আয়ুর্বেদিক মতে মানব দেহে বিভিন্ন রোগ ব্যাধি ভালো করতে বিশেষ ভাবে কার্যকারী। তবে এখন করোনাকালে বিশেষজ্ঞরা জোর দিয়েছেন তুলসী পাতার ওপর। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে আদা,গোলমরিচ,এলাচ,হলুদ এর সাথে তুলসীপাতা নিয়ম করে খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন  ডাক্তাররা। হিটের অসুখ ইসলামিয়ার  চিকিৎসায় তুলসী পাতা ভালো কাছ দেয়।পাঁচ বছর ধরে তুলসী পাতা নিয়ে গবেষণা করেছেন ডাঃ পি.জি কুরূপ।তুলসী পাতা সেবন করার কোন বাঁধাধরা নিয়ম নেই। যখন ইচ্ছা যত গুলো ইচ্ছা চিবীয়ে খেতে পারেন।

  দৈনন্দিন জীবনে তুলসীপাতার প্রয়োগ-

* কার্ত্তিক মাসে প্রতিদিন প্রাতঃকালে দু-তিনটি করে তুলসী  পাতা খালিপেটে  চিবিয়ে খেলে সারা বছর কোনও প্রকার রোগ হবে না। 

* খাবার জলের পাত্রে তুলসীপাতা দিয়ে সেই জল পান করলে উদর সংক্রান্ত কোন রোগ হয় না। 

* তুলসী মালা,কন্ঠে ধারণ করলে শরীর সবসময় স্ফূর্তিময় ও সুস্থ থাকে।

* তুলসী কামবাসনার ওপর নিয়ন্ত্রণ রাখে।কামশক্তিকে তো বৃদ্ধি করেই,কিন্তু সেটা সাত্ত্বিক এবং সীমিত রাখে।

তুলসীপাতা চিবোলে দাঁতে পোকা লাগে না।দাঁত মজবুত ও দুর্গন্ধ মুক্ত হয়।

* তুলসীপাতার রস নিয়ে মালিশ করলে হাড় শক্ত হয়,দেহের ক্লান্তি দূর হয় ও শরীরকে নীরোগ রাখে।

* সূর্যগ্রহণ বা চন্দ্রগ্রহণ এর সময় খাবার জলে,খাবারের পাত্রে তুলসীপাতা রেখে দিলে গ্রহণের সময় দূষিত আবহাওয়া প্রভাব পরে না। 

 নানা ধরনের রোগ থেকে মুক্তি পেতে তুলসী পাতার ব্যবহার 


1.কানে কম শোনা- কানে কম শুনলে অথাৎ শ্রবণশক্তি কম হলে তুলসীর রস অল্প গরম করে সেই রস কানের মধ্যে সকাল- সন্ধ্যায় ফোঁটা ফোঁটা করে দিলে এই রোগ ভালো হয়।

2.স্বপ্ন দোষ- এই রোগ যুবকদের ঘুমের ঘরে বীযপাত হয়ে যায়। এই অবস্থায় তুলসী গাছের মূল শিকড় বেটে খেলে উপশম হয়। 

3.মুখের দুর্গন্ধ - খাবারের পর একটা দুটো তুলসী পাতা চিবিয়ে খেলে, মুখের দুর্গন্ধ কেটে যাবে এবং পোকা লাগবে না।

4. কুষ্ঠরোগ বা দাদ- এই রোগ হলে তুলসী পাতার রস খাওয়া আবশ্যক।তুলসী পাতার রস এর সাথে তুলসী গাছের মূলের মাটি ঘায়ের ওপর লাগাতে হবে।এই ভাবে কয়েক মাস তুলসী পাতার রস খেতে  এবং লাগাতে হবে। 

5.বিদ্যুতে শক লাগা- বিজলী অথাৎ ইলেকট্রিক কারেন্ট লেগে কেউ যদি অজ্ঞান হয়ে যায়, তাহলে তার মাথায়,মেরুদণ্ডে,হাতে ও পায়ের তালুতে তুলসীর রস দিয়ে কিছু ক্ষণ মালিশ করলে জ্ঞান ফিরে আসবে।